বৃহস্পতিবার, ৫ আগস্ট, ২০২১

বাংলা ভাষার শব্দের প্রয়োগ- অপপ্রয়োগ – বিসিএস লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি - Shobder proyog o opoproyog - BCS exam preparation Bangla

 


বাংলা ভাষার শব্দের প্রয়োগ- অপপ্রয়োগ বিসিএস লিখিত পরীক্ষা প্রস্তুতি - Shobder proyog o opoproyog - BCS exam preparation Bangla

প্রয়োগ-অপপ্রয়োগ

প্রয়োগ : শব্দের শুদ্ধ বা ঠিক ব্যবহারের নাম প্রয়োগ।

অপপ্রয়োগ : যে সকল শব্দ ভুল কিন্তু আমরা প্রতিনিয়ত ব্যবহার করছি তার নামই অপপ্রয়োগ। নিম্নে কিছু অপপ্রয়োগের দৃষ্টান্ত তুলে ধরা হলো

. ইদানীংকালে- ইদানীং' অর্থ বর্তমানকাল। অর্থাৎ ইদানীং শব্দের সাথে কালযুক্ত আছে ইদানীংকাল' লিখলে বাহুল্যজনিত অপপ্রয়োগ হবে অতএব লিখতে হবে ইদানীং।।

. কার্যকরী- কার্যকরী শব্দটির প্রয়োগ বা শুদ্ধরূপ হলো কার্যকর। কার্যকর শব্দের অর্থ ফলদায়ক বা উপযোগী। সুতরাং কার্যকরী শব্দটির শেষে -কার ব্যবহার বাহুল্য।

৩। তৎকালীন সময় তৎকালীন শব্দের অর্থ সেই সময়। তাই তৎকালীনের সাথে সময় ব্যবহার করলে অপপ্রয়োগ হবে। সুতরাং তৎকালীন লিখতে হবে।।

. পদক্ষেপ- শব্দের অর্থ পা ফেলা বা পদার্পণ। কিন্তু আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ অর্থে প্রায়ই ব্যবহার করি সুতরাং ব্যবস্থা গ্রহণ অর্থে পদক্ষেপ শব্দের ব্যবহার অশুদ্ধ।

৫। খাটি গরুর দুধ বাক্যটি অর্থহীন। গরু খাঁটি বা নকল হয় না। সুতরাং এর শুদ্ধরূপ হবে গরুর খাটি দুধ'! তেমনি, মরিচের খাটি গুড়া', সরিষার খাটি তৈল ইত্যাদি ব্যবহার শুদ্ধ বা প্রয়োগ।

৬। জন্মবার্ষিকী- জন্মবার্ষিকী শব্দটি অপপ্রয়োগ। এর প্রয়োগ হলো জন্মবার্ষিক' তেমনি প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী প্রয়োগ হলো প্রতিষ্ঠাবার্ষিক কেননা বছরে একবার অনুষ্ঠিত হলে বার্ষিক বলে। যেমন: বার্ষিক পরীক্ষা। কখনো বার্ষিকী পরীক্ষা হয় না।

. বমালসুদ্ধ বমাল শব্দের অর্থ মালসহ বা মালসমেত। তাই বমালসুদ্ধ ব্যবহার করলে বাহুল্যদোষে দুষ্ট হবে। কেননা বমাল অর্থ মাল সহ বা মালসুদ্ধ সুতরাং বমালসুদ্ধ ব্যবহার করলে সুদ্ধ শব্দটির ব্যবহার দুইবার হয়। অর্থাৎ বমালসুদ্ধ' অর্থ হয় মালসহসুদ্ধ' ফলে শব্দটি বমালসুদ্ধ না হয়ে বমালামালসহ হবে।।

৮। অশ্রুজল- চোখের পানি অর্থে ব্যবহার অপপ্রয়োগ কেননা অশ্রু শব্দের অর্থ চোখের পানি বা জল তাই এর সাথে জল যুক্ত থাকলে শব্দটির অর্থ হয় চোখের জল জল। সুতরাং অশ্রুজল শব্দটির ব্যবহার অপপ্রয়োগ। অতএব এর প্রয়োগ হবে অশ্রু চোখের জল

. আকণ্ঠ পর্যন্ত আকণ্ঠ পর্যন্ত শব্দটি অপপ্রয়োগ কেননা আকণ্ঠ' অর্থ কণ্ঠ পর্যন্ত। তাই এর সাথে আবার পর্যন্ত যোগ করলে অপপ্রয়োগ হবে। অতএব শব্দটির প্রয়োগ হবে আকণ্ঠ/কণ্ঠ পর্যন্ত।

১০. সমকালীন সময়- সমকালের সাথেই কাল বা সময় যুক্ত আছে। তাই সমকালীনের সাথে সময় ব্যবহার করা বাহুল্য জনিত অপপ্রয়োগ সুতরাং শব্দটির শুদ্ধ রূপ হলো সমকালীন'

১১. সাম্প্রতিককাল- সাম্প্রতিক বা সম্প্রতির মধ্যে কাল নিহিত আছে। তাই সাম্প্রতিককাল ব্যবহার করা অপপ্রয়োগ। অতএব শব্দটির প্রয়োগ হবে সাম্প্রতিক/সম্প্রতি

১২. কর্তৃপক্ষগণ - কর্তৃপক্ষ' শব্দটিই বহুবচন বাচক। কিন্তু আমরা যদি এর সাথে গণ ব্যবহার করি তাহলে বাহুল্যজনিত অপপ্রয়োগ হবে সুতরাং শব্দটির প্রয়োগ হলো কর্তৃপক্ষ।

১৩. আশ্চর্য - আশ্চর্য শব্দের অর্থ বিস্ময়কর। বিস্মিত অর্থে শব্দটির ব্যবহার অপপ্রয়োগ অতএব শব্দটির শুদ্ধরূপ হবে আশ্চর্যান্বিত

১৪. আন্তর্জাতিক জাতির অন্তর্গত বা জাতির অভ্যন্তরীণ বিষয় সম্পর্কিত অর্থে আন্তর্জাতিক শব্দের প্রয়োগ শুদ্ধ। বিভিন্ন জাতি সংক্রান্ত বা সার্বজাতিক অর্থে প্রয়োগ অশুদ্ধ হলেও তা ব্যাপকভাবে প্রচলিত।

১৫, প্রামাণ্য- প্রামাণ্য শব্দের অর্থ প্রামাণিকতা বা বিশ্বস্ততা। প্রামাণ্য শব্দটি বিশেষ্য। তাই এর বিশেষণ অর্থে অর্থাৎ প্রামাণিক, প্রমাণিত, বিশ্বাসযোগ্য অর্থে প্রয়োগ ভুল।।

১৬. ফরাসীয়- ফরাসি' শব্দের অর্থই ফরাসি দেশীয় তাই ফরাসি শব্দের সাথে ঈয় প্রত্যয় যোগ করলে অপপ্রয়োগ হবে। তেমনি রুশীয়, মার্কিনীয় ইত্যাদি ব্যবহার একই রকম অপপ্রয়োগ।

১৭. অজ্ঞানতা - অজ্ঞতা' অর্থে অজ্ঞানতার ব্যবহার অশুদ্ধ। কেননা অজ্ঞানতা' অর্থ জ্ঞানশূন্যতা তাই জ্ঞানশূন্যতা অর্থে অজ্ঞানতার প্রয়োগ শুদ্ধ।

১৮, আঙ্গিক - আঙ্গিক শব্দের অর্থ অঙ্গ সমন্ধীয়। কিন্তু আজকাল অনেকেই কলাকৌশল অর্থে আঙ্গিক ব্যবহার করছে। ফলে শব্দটির অপপ্রয়োগ ঘটছে।

১৯. অপোগণ্ড - অপোগণ্ড শব্দের অর্থ নাবালক বা অপ্রাপ্ত বয়স্ক বালক। এজন্য অপদার্থ, অকর্মণ্য অর্থে শব্দটির প্রয়োগ অশুদ্ধ।

২০. কর্মব্যপদেশে - কর্মব্যপদেশে শব্দের অর্থ কাজের ছুতায় কিন্তু কর্মসূত্রে অর্থে শব্দটির প্রয়োগ ভুল

২১. প্রতিঘরে ঘরে - প্রতিঘরে/ঘরে ঘরে শুদ্ধরূপ প্রতিঘরে ঘরে অশুদ্ধ। কেননা প্রতিঘরে  শব্দটির মধ্যেই ঘরে ঘরে' শব্দটি নিহিত আছে। তাই প্রতিঘরে ঘরে ব্যবহার করলে অর্থ দাঁড়াবে ঘরে ঘরে ঘরে' যা অশুদ্ধ। সুতরাং প্রতিঘরে/ঘরে ঘরে; ব্যবহার করতে হবে।

২২. পূর্বাহ্ণেপূর্বাহ্ণে' শব্দের অর্থ দিনের প্রথম ভাগ বা সকালবেলা তাই পূর্বে বা আগে অর্থে শব্দটির পূর্বাহ্ণ' শব্দটির ব্যবহার ভুল।

২৩ বিদেহী/বৈদেহী - বিদেহ' শব্দের অর্থ দেহ শূন্য বা অশরীরী বিদেহ' শব্দটি বিশেষণ কিন্তু এই বিদেহ' শব্দের সাথে -যোগ করে পুনরায় বিশেষণ করে বাহুল্যজনিত অপপ্রয়োগ করা হয়েছে। সুতরাং বিদেহ শব্দটিই শুদ্ধ প্রয়োগ।

২৪ আয়ত্তাধীন - আয়ত্ত শব্দের অর্থই অধীন এজন্য আয়ত্ত শব্দের সাথে অধীন যোগ করলে বাহুল্যজনিত অপপ্রয়োগ হবে। সুতরাং এর শুদ্ধ প্রয়োগ হবে আয়ত্ত অথবা অধীন।

২৫ ভাষাভাষী - ভাষা ব্যবহারকারী অর্থে ভাষী শব্দটি শুদ্ধ প্রয়োগ। কিন্তু ভাষী অর্থে ভাষাভাষী ব্যবহার করলে শব্দটির অপপ্রয়োগ ঘটে।

২৬ সপরিবার/সপরিবার - স্বপরিবার' অর্থ নিজ পরিবার। বর্তমান সময়ে নিমন্ত্রণ পত্রে লেখা থাকে আপনি স্বপরিবার আমন্ত্রিত। নিমন্ত্রণ পত্রে স্বপরিবার যে অর্থে লেখা হয় সে অর্থে স্বপরিবার অপপ্রয়োগ হয়। কেননা, নিমন্ত্রণপত্রে পরিবারসহ বা সপরিবারে আমন্ত্রিত এই কথাটি বলতে স্বপরিবার ব্যবহার করা হয়। সুতরাং শব্দটির প্রয়োগ সপরিবার বা পরিবারসহ' হবে।

২৭ সঠিক সঠিক' শব্দের প্রয়োগ হলো ঠিক। কেননা আমরা ঠিক অর্থে ব্যবহার করি সঠিক।

আর ঠিক দ্বারাই যদি প্রকৃত অর্থ বুঝা যায় তাহলে সঠিক ব্যবহার করার কোনো প্রয়োজন নেই। তাছাড়া অর্থ সাথে সুতরাং সঠিক লিখলে অর্থ দাঁড়ায় কোনটি ঠিকের সাথে। অতএব আমরা বলতে পারি সঠিক' শব্দটি অপপ্রয়োগ।

২৮. তাপদাহ- তাপদাহ' শব্দটি অশুদ্ধ। কেননা তাপ অর্থ উষ্ণতা, উত্তাপ বা দাহ। সুতরাং তাপদাহ' অর্থ দাঁড়ায় দাহদাহ। যার কোনো অর্থ নেই। অতএব শব্দটির প্রয়োগ হলো দাবদাহ দাবদাহ অর্থ দাবানলের তাপ।।

২৯, ফলফ্রুট- ফলফ্রুট শব্দের ব্যবহার প্রায়ই দেখা যায়, কিন্তু শব্দটি অপপ্রয়োগ। কারণ ফ্রুট শব্দের অর্থ হলো ফল। সুতরাং ফলফ্রুট শব্দের অর্থ দাড়ায় ফলফল, আর ফলফল কোনো অর্থ বহন করে না। অতএব ফলফ্রুট' শব্দের শুদ্ধ প্রয়োগ হলো ফল/ফ্রুট

৩০. পুনর্মিলনী- পুনর্মিলন অর্থ অনেক দিন পর সবার একত্রে সাক্ষাৎ। এই শব্দটার সাথে যোগ করলে আলাদা বা নতুন কোনো অর্থ বহন করে না। বরং প্রত্যয়জনিত অপপ্রয়োগ ঘটে। সুতরাং পুনর্মিলনী না হয়ে পুনর্মিলন হবে

৩১. লজ্জাস্কর/লিজ্জাজনক - লজ্জাস্কর বা লজ্জাজনক দুটো শব্দই অশুদ্ধ। এই দুটো শব্দের কোনো অর্থই নেই। আমরা লজ্জাকর অর্থে লজ্জাস্কর লজ্জাজনক' ব্যবহার করি। অতএব শব্দ দুটোর পরিবর্তে লজ্জাকর ব্যবহার করতে হবে।

৩২. মোঃ- আমরা নামের ক্ষেত্রে মোঃ' শব্দটি দিয়ে মোহাম্মদ' লিখে থাকি। কিন্তু চিহ্ন দিয়ে কোনো শব্দের সংক্ষিপ্ত রূপ হয় না। আমরা সংক্ষিপ্ত রূপ বোঝাতে (.) ডট চিহ্ন ব্যবহার করি তাহলে মোঃ দিয়ে মোহাম্মদ বোঝানো মারাত্মক অপপ্রয়োগ। শুধু তাই নয় মুসলিম ধর্মমতে হযরত মোহাম্মদ (.) শ্রেষ্ঠ নবী। আর সেই সূত্রেই মুসলমানরা তাদের নামের পূর্বে মোহাম্মদ ব্যবহার করে। সুতরাং একজন নবীর নাম সংক্ষিপ্ত রূপে লিখলে তাকে অবমাননা বা অসম্মান করা হয়। অতএব মোহাম্মদ লিখলে সংক্ষিপ্তভাবে না লিখে সম্পূর্ণই লিখতে হবে।

৩৩. সমতুল্য - সম শব্দের অর্থ তুল্য, সমান এবং তুল্য শব্দের অর্থ সদৃশ সমান, ন্যায়, অনুরূপ ইত্যাদি। অর্থাৎ সম এবং তুল্য দুটি শব্দই একই অর্থ প্রদান করে। সুতরাং সম এবং তুল্য এক শব্দ হিসেবে ব্যবহার করলে অপপ্রয়োগ হবে। অতএব সম অথবা 'তুল্য লিখতে হবে।

৩৪. কেবলমাত্র - কেবল অর্থ একমাত্র, শুধু এবং মাত্র শব্দের অর্থ কেবল, শুধু। সুতরাং কেবল যা মাত্রও তাই। অতএব কেবলমাত্র ব্যবহার করলে শব্দটি বাহুল্যদোষে দুষ্ট হবে। তাই মাত্র অথবা কেবল ব্যবহার করতে হবে। একইভাবে শুধুমাত্র ব্যবহার করা যাবে না। শুধু অথবা মাত্র ব্যবহার করতে হবে

৩৫. সমৃদ্ধশালী-- সমৃদ্ধ শব্দটি বিশেষণ যার অর্থ সম্পদশালী কিন্তু সমৃদ্ধ এর সাথে শালী যোগ করায় বিশেষণের অপপ্রয়োগ করা হয়েছে। কারণ সমৃদ্ধ একটি বিশেষণ। আর বিশেষণ কে বিশেষণ করা পাগলামি ছাড়া কিছুই নয়। সুতরাং সম্পদশালী/সমৃদ্ধ ব্যবহার করতে হবে।

৩৬. লক্ষ/লক্ষ্য-- লক্ষ ক্রিয়া হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যেমন আপনি বিষয়টি লক্ষ করুন। লক্ষ্য - উদ্দেশ্য অর্থে ব্যবহৃত হয়। তাই লক্ষ্য এর স্থলে লক্ষ ব্যবহার করা অপপ্রয়োগ। তবে লক্ষ শুধু ক্রিয়া হিসেবেই নয় বরং সংখ্যার ক্ষেত্রেও তা ব্যবহার করা যাবে।

৩৭. নিম্ন- নিম্ন অর্থ নিচু ৰা নিচে, অধঃ। কিন্তু নিন্ম শব্দের কোনো অর্থই নেই। অথচ আমরা নিম্ন এর স্থলে অহরহ নিন্ম ব্যবহার করি। সুতরাং শব্দটি নিন্ম না হয়ে নিম্ন হবে।

৩৮. উপরোক্ত উপরে উক্ত বোঝাতে উপর্যুক্ত শব্দটি ব্যবহৃত হয়। উপরোক্ত শব্দের কোনো অর্থ নেই তারপরেও আমরা ব্যবহার করে অপপ্রয়োগ করি। উপরি + উক্ত = উপর্যুক্ত। সন্ধির নিয়ম অনুসারে শব্দটি গঠিত হয়েছে। নিয়মটি হলো ই/ঈ এর পরে যদি ই/ঈ ভিন্ন অন্য স্বরবর্ণ আসে তাহলে উভয়ে মিলে (-ফলা) হয় এছাড়াও ব্যাকরণের নিয়মের মাঝে বিভিন্ন ধরনের অপপ্রয়োগ ঘটে। পরের পোস্টে সে সম্পর্কিত কিছু উদাহরণ দেওয়া হলো।

 

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

Trending